লোডিং......

ই-ক্যাবের মানবসেবার সাহায্য যাচ্ছে প্রকৃত অভাবীদের কাছে

করোনা পরিস্থিতি ই-কমার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের বিশেষ উদ্যোগ মানবসেবার ত্রাণ অভাবী মানুষেরা পেতে শুরু করেছেন। পহেলা রমযান ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। রমাযানের প্রথম সপ্তাহে ঢাকার আবেদনকারীদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ এর প্রথমপর্ব সম্পন্ন হবে। রমযানের প্রথম সপ্তাতেই ঢাকার বাইরে ত্রাণ বিতরণ করা হবে। সারাদেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ই-ক্যাবের ভলানটিয়ার গণ সাহায্যপ্রার্থীদের যে তালিকা দিয়েছে ই-ক্যাবের কলসেন্টার  তা থেকে যাচাই বাছাই বাছাই করে প্রকৃত অভাবী ও সমস্যাগ্রস্থদের এই ত্রাণ দেয়া হচ্ছে বলে জানান মানবসেবার বন্টন বিভাগের প্রধান জনাব ইব্রাহিম খলিল। 

ঢাকা শহরের মগবাজার, মালিবাগ, পল্টন, মিরপুর, মোহাম্মদপুর, বসিলা, খিলগাঁও, ভাটারা, কড়াইল, দক্ষিণখান, জুরাইন, যাত্রাবাড়ী ইত্যাদি এলাকায় ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। ই-ক্যাব ভলানটিয়ার টিমের সদস্যরা পিপিই পরিধান করে পিকআপ ভ্যানে করে ত্রাণ বিতরণ কাজ অব্যাহত রেখেছে। এছাড়া রেডএক্স নামের একটি লজিস্টিক কোম্পানীও ত্রাণ বিতরণে ই-ক্যাবকে সহযোগিতা করছে।

ই-ক্যাবের জেনারেল সেক্রেটারী আবদুল ওয়াহেদ তমাল বলেন, আমরা সত্যিকার অভাবী মানুষদের কাছে আমাদের ত্রাণ পৌঁছে দিতে চাই। আমাদের ভলানটিয়ারগণ এই বিষয়ে কাজ করছেন। ঢাকা এবং ঢাকার বাইরে প্রকৃত সমস্যাগ্রস্থ লোকদের কাছে আমাদের সাহায্য আমরা পৌঁছে দিতে চাই।

ই-ক্যাবের মানবসেবা প্রকল্পের বন্টন টিমের প্রধান ইব্রাহিম খলিল বলেন, আমাদের ভলানটিয়ারদের মাধ্যমে আমরা যে সমস্যাগ্রস্থদের তথ্য পাচ্ছি আমরা যাচাই বাছাই করে তাদের ঘরে ত্রাণ পৌঁছে দিচ্ছি। গত কয়েকদিন ঢাকায় আমাদের ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। শীঘ্রই আমরা এই ত্রাণকে ঢাকার বাইরে দেয়ার চেষ্টা করব। আমরা আগামী সপ্তাহের মধ্যে ৫শ পরিবারের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দিতে পারব বলে আশা করি।

ই-কমার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ বিভিন্ন ভাবে দেশের মানুষের পাশে দাড়িয়েছে। মানবসেবা ই-ক্যাবের অন্যতম একটি উদ্যোগ। ইতিপূর্বে খাদ্য ও জরুরী পণ্য পরিবহন সংক্রান্ত চলাচলে ই-ক্যাব সরকারের অনুমতি গ্রহণ করেছে। এবং ইক্যাবের সদস্য প্রতিষ্ঠানগুলো সারাদেশে প্রায় এক লক্ষ মানুষকে প্রতিদিন তাদের খাদ্য ঔষধ ও জরুরী পণ্যসেবা পৌঁছে দিচ্ছে। 

Share: